মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

শিক্ষা প্রতিবেদন

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস

 

পরিচিতি

সর্ব প্রথমে ১৯৯৩ সাল থেকে পর্যায়ক্রমে ৪টি উপবৃত্তি প্রকল্পের মাধ্যমে উপজেলা পর্যায়ে মাধ্যমিক শিক্ষা ব্যবস্থাপনার জন্য প্রকল্প কার্যালয় স্থাপিত হয় । পরবর্তীতে এই উপজেলা প্রকল্প কার্যালয় এবং এর জনবল রাজস্ব খাতে স্থান্তারিত হয়। তখন থেকে এই দপ্তরের নামকরণ করা হয় উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস। বাংলাদেশের  সকল উপজেলায় একটি করে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস রয়েছে। কিন্তু এখনও বৃহ্ত্তম চারটি মহানগরীতে  মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস স্থাপিত হয় নাই ।

১।মাধ্যমিক পর্যায়ের ছাত্রছাত্রীদের উপবৃত্তি প্রকল্প- সুবিধাভোগীর সংখ্যা১৮৫০জন।

২।উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের ছাত্রীদের উপবৃত্তি প্রকল্প-সুবিধাভোগীর সংখ্যা- ১৪৮জন।

প্রকল্প পরিচালকের সার্বিক তত্ত্বাবধানে ব্যাংক এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সমন্বয়ে ৬ষ্ঠ থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের মাঝে উপবৃত্তি বিতরণ ।বর্তমানে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারগনের  অন্যতম কাজ হচ্ছে মাধ্যমিক পর্যায়ে শিক্ষার্থীদের মাঝে বিনামূল্যে পাঠ্যপুস্তক বিতরন করা ।মাউশি ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নির্দেশে নিয়মিত বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের একাডেমিক পরিদর্শন,মনিটরিং করা  এবং উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের চাহিদা মোতাবেক  রিপোর্ট প্রস্তুত করে তা প্রেরণ করা।শিক্ষার মানোন্নয়নে একাডেমিক সুপার-ভিশন, শিক্ষক-অভিভাবক সমন্বয় সভা অনুষ্ঠান, প্রতিষ্ঠান প্রধানদের সমন্বয়  সভা অনুষ্ঠান ও ক্লাষ্টার গঠন করত: বিভিন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন ।সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নির্দেশ মোতাবেক শিক্ষকদের বিষয় ভিত্তিক তালিকা  সংরক্ষণ করে প্রশিক্ষনের বিষয়টি নিশ্চিত করা ।মাধ্যমিক স্তরের বেসরাকরী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে  শিক্ষক/কর্মচারী নিয়োগের লক্ষ্যে শিক্ষক/কর্মচারী  বাছাই কার্যক্রমে দ্বায়িত্ব পালন করা ।উপজেলায় প্রাথমিকত্তোর শিক্ষা  সংক্রান্ত  যাবতীয় তথ্য সংগ্রহ  ও সংরক্ষণ প্রয়োজন অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট দপ্তর সমূহে প্রেরণ ।ব্যানবেইস অথবা  অন্যান্য কর্তৃপক্ষের নির্দেশ মোতাবেক  শিক্ষা সংক্রান্ত বিভিন্ন জরিপ, শুমারী, তথ্যানুসন্ধান, কর্মশালা, প্রশিক্ষণ ও ফোকাস গ্রুপ ডিসকাসন নির্ধারিত সময়ে সম্পন্ন করতে সহায়তা করা ।মাধ্যমিক স্তরের বেসরাকরী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে  শিক্ষক/কর্মচারী বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ এর বিষয়ে তদন্ত কার্যক্রম সম্পন্ন করণ ।বর্তমান সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে ডিজিটাল কার্যক্রমের আওতায় নিয়ে আসা।সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কম্পিউটার শিক্ষা  বাধ্যতামূলক করা, ইন্টারনেট সংযোগ, মাল্টিমিডিয়ার ব্যবহার, কম্পিউটার ল্যাব স্থাপন নিশ্চিত করা ।ইভ টিজিং প্রতিরোধ করার লক্ষ্যে শিক্ষার্থীদের নৈতিক মূল্যবোধ জাগ্রত করার জন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকবৃন্দের সাথে আলোচনা অনুষ্ঠান করা।উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা  এর তত্ত্ববধানে সুষ্ঠু, সুন্দর ও নকলমুক্ত পরিবেশে জেএসসি, এসএসসি, এইচএসসি বা সমমানের  পরীক্ষা সম্পন্ন করণ। তাছাড়াও উপজেলার  আভ্যন্তরীন পরীক্ষায় সকল  প্রতিষ্ঠানে অভিন্ন রুটিনে পরীক্ষা গ্রহণ এবং নির্দ্দিষ্ট তারিখে ফলাফল প্রকাশ নিশ্চিত করণ।স্কাউট, গার্লস গাইড,  জাতীয় স্কুল ও মাদ্রাসা ক্রীড়া  প্রতিযোগিতা শীত ও গ্রীষ্মকালীন খেলাধূলা এবং বিভিন্ন জাতীয় দিবস সমূহ পালনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করা।

 

উপজেলা শিক্ষা অফিস

পরিচিতি

প্রতিটি উপজেলায় একটি করে উপজেলা শিক্ষা অফিস রয়েছে । সিটি কর্পোরেশনের আওতায় প্রশাসনিক ইউনিটকে থানা বলা হয় যে জন্য সেখানে থানা শিক্ষা অফিস বলা হয় । উপজেলা/থানা শিক্ষা অফিসের কাজ একই । থানা/উপজেলা শিক্ষা অফিস হলো প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রনালয়ের আওতাধিন প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের নিয়ন্ত্রাধিন মাঠপর্যায়ের একটি দপ্তর।

১।উপবৃত্তি  ঃউপজেলার সরকারি,রেজিঃবেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তিকৃতছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে দারিদ্র পরিবারের

   শতকরা ৭৫% শিক্ষার্থীদের মধ্যে মাসিক একক পরিবার প্রতি১০০/= ও যৌথ পরিবার প্রতি ১২৫/= টাকা হারে

   উপবৃত্তি প্রদান করা হয়। সোনালী ব্যাংক,লাখাই শাখা এই উপবৃত্তি বিতরণ করে থাকে।

২।স্কুল ফিডিং প্রোগ্রামঃ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের যৌথ আর্থিক সহায়তায় উপজেলায়

   ৫১টি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রছাত্র/ছাত্রীদের মধ্যে উন্নত প্রোটিনযুক্ত,পুষ্টিকর বিস্কুট সরবরাহ  করা হয়।

BDSC ও জন সেবাকেন্দ্র  এব্যাপারে সার্বিক সহযোগিতা  প্রদান করছে।উপজেলার বুল্লা বাজারে তাদের একটি ওয়ার

হাউজ আছে এবং এখান থেকে প্রতি নিয়ত উপজেলায় সকল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নিয়মিত ও পরিমানমত বিস্কুট সরবরা হহচ্ছে।

৩।রস্ক প্রকল্প-(আনন্দস্কুল) উপজেলায় ঝরেপড়াও পিছিয়ে  পড়া অভর্তিকৃত শিশুদের জন্য‘‘ আনন্দস্কুল’’ নামে ROSC(Reaching out of School Children) প্রকল্পের আওতায় ৮০টি বিদ্যালয়ে ২৫৩৬ জনশিশূ ২য় ও ৩য়শ্রেণিতে লেখাপড়া করছে।